কুমিল্লায় স্যারের পাঠদানের সময় প্যান্টের চেন খোলা দেখে ২৫ ছাত্রী অজ্ঞান

কুমিল্লায় স্যারের পাঠদানের সময় প্যান্টের চেন খোলা দেখে ২৫ ছাত্রী অজ্ঞান

কুমিল্লায় স্যারের পাঠদানের সময় প্যান্টের চেন খোলা দেখে ২৫ ছাত্রী অজ্ঞান

শ্রেণীকক্ষে শিক্ষক পাঠদানে ব্যস্ত ছিল। এ সময় হঠাৎ করেই শিক্ষার্থীদের মাঝে হাসাহাসি শুরু হয়। হাসাহাসির এক পর্যায়ে একে একে অজ্ঞান হতে থাকে শিক্ষার্থীরা। পরে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। গতকাল সােমবার দুপুর আড়াইটায় কুমিল্লা সদর উপজেলার সৈয়দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণী মেয়েদর কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নারায়ন চক্রবর্তী জানান, কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার কালিরবাজার ইউনিয়ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে সৈয়দপুর এলাকায় সৈয়দপুর উচ বিদ্যালয়টির অবস্থান। প্রতিদিনের ন্যায় সকালে যথারীতি শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হয়। দুপুরে টিফিন পিরিয়ডে শেষে আবার পাঠদান শুরু হয়। বেলা আড়াইটায় ৮ম শ্রেণীর মেয়েদর ক্লাসে পাঠদান করছিলেন সুধাংশু ভূষন দাস।

তিনি জানান, হঠাৎ শ্রেণীকক্ষে দু’তিন শিক্ষার্থী হাসাহাসি শুরু করে । কাছে গিয়ে কারণ জানতে চাইলে অন্যরাও হাসি শুরু করে। এরপর শিক্ষার্থীরা একে একে অসুস্থ্য হয়ে পড়তে থাকে। পুরো স্কুলে এসময় আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। অভিভাবকদের কানে পৌঁছালে আতঙ্কিত হয়ে অভিভাবকগণ স্কুলে ছুটে আসে।

এদিকে শিক্ষকসহ অন্যরা অসুস্থ্য শিক্ষার্থীদের স্থানীয়রা কাবিলা ইষ্টার্ণ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান শিক্ষার্থীরা অতিরিক্ত হাসির কারণে প্রচন্ড মাথা ব্যাথায় অজ্ঞান হয়ে যায়। চিকিৎসা ভাষায় এটি একটি মানসিক রােগ। দু’একজনের মধ্য প্রথম রােগটি দেখা দিলে বাকী শিক্ষার্থীরাও আতঙ্কিত হয়ে অসুস্থ্য হয়ে পরে।

তবে হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে শুধুমাত্র ওই অসুস্থ্য শিক্ষার্থীদের স্যালাইন দিয়ে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ আতঙ্কিত হয় পড়ে।

dreamboy

Related Posts

leave a comment

Create Account



Log In Your Account